সম্পূর্ন জানতে দেখতে ক্লিক করুন
স্বাস্থ্য

আমাশয়ের  কারণ , লক্ষণ, চিকিৎসা এবং প্রতিরোধ

আমাশয়ের  কারণ , লক্ষণ, চিকিৎসা এবং প্রতিরোধ

আমাশয় বা পেট খারাপকে সাধারণত বর্ষাকালে হওয়া একটি রোগ বলে মনে করা হয়। দূষিত জল এবং খাবারের মাধ্যমে এটি দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। সুতরাং, আপনি কী খাওয়া-দাওয়া করছেন এবং কোথায় করছেন সে সম্পর্কে অতিরিক্ত সতর্ক থাকুন! আমাশয় সম্পর্কে আরো তথ্যের সন্ধান করা যাক।

আমাশয় কী?

আমাশয়, মূলত অন্ত্রের প্রদাহ দ্বারা চিহ্নিত গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল ব্যাধিকে বোঝায়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, আমাশয়কে ডায়ারিয়া দ্বারা চিহ্নিত করা হয়, যেখানে পাতলা, জলযুক্ত মলে রক্ত ​​থাকে।

এর কারণসমূহ

আমাশয় সাধারণত ভাইরাল, ব্যাকটেরিয়া বা প্রোটোজোয়া সংক্রমণের কারণে হয়। এটি পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার অভাবজনিত অবস্থার সাথে যুক্ত এবং বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই দূষিত খাবার এবং জলের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। যখন একজন ব্যক্তি আমাশয় দ্বারা সংক্রামিত হয়, তখন সেই অণুজীবটি রোগীর অন্ত্রে বাস করে। তারপর সংক্রামিত ব্যক্তির মলের মধ্য দিয়ে দেহের বাইরে চলে যায়। এই অণুজীবটিই কখনো জল বা খাবারের সংস্পর্শে এলে সেটা দূষিত হয়ে যায়।

আমাশয় রোগের লক্ষণ

আমাশয়ের উপসর্গ পাঁচ দিন বা তারও বেশি সময় ধরে থাকতে পারে। কারো কারো জন্য, উপসর্গগুলি হালকা মাত্রার হতে পারে, আবার অন্যরা গুরুতর ডায়রিয়া এবং বমিতে ভুগতে পারে। এই বমিই আবার শরীরের সম্ভাব্য জলশূন্যতার কারণ হতে পারে।

  • পেট ফোলা
  • পেটে ব্যথা
  • রক্তাক্ত ডায়ারিয়া
  • পেট ফাঁপা
  • বমি বমি ভাব, বমি সহ বা ছাড়া

কিন্তু, যদি সংক্রমণ গুরুতর হয়, তাহলে রোগী জলশূন্যতার কারণে অন্যান্য কিছু উপসর্গগুলি অনুভব করতে পারে, যেমন:

  •  প্রস্রাবের পরিমাণ কমে যাওয়া
  • শুষ্ক ত্বক এবং শ্লেষ্মার ঝিল্লি
  •  অতিরিক্ত তৃষ্ণা
  • জ্বর এবং সর্দি
  • পেশী খিঁচুনি ব্যথা
  • দৈহিক শক্তি হ্রাস
  •  ওজন হ্রাস

ঝুঁকি

আপনার আমাশয় হওয়ার ঝুঁকি বেশি যদি:

  • আপনি দূষিত উৎস থেকে জল পান করে থাকেন
  • আপনি রাস্তার বিক্রেতা ইত্যাদির মতো অস্বাস্থ্যকর জায়গা থেকে খাবার খান
  •  বিশেষত সামুদ্রিক খাবার বা মাংস, স্যালাড ইত্যাদির মতো আপনি কম রান্না করা খাবার খান
  • আপনার ডায়াবেটিস, অঙ্গ প্রতিস্থাপন, এইডস ইত্যাদির মতো যদি কোন বিদ্যমান অবস্থা থাকে যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে দুর্বল করে দেয়
  •  আপনার কেমোথেরাপি হয়েছে বা চলছে
  •  আপনি ভুলভাবে সংরক্ষিত খাবার খেয়েছেন
  •  আপনি দুর্বল স্বাস্থ্যবিধি মানা হয় এমন এলাকায় বাস করেন
  • আপনি কোন উন্নয়নশীল দেশে ভ্রমণ করছেন

আমাশয় রোগের চিকিৎসা

আমাশয় নিয়ন্ত্রণের জন্য ক্লিনিক্যাল ভাবে রোগ নির্ণয় প্রয়োজন। একবার আমাশয় রোগ নির্ণয় নিশ্চিত হয়ে গেলে, লক্ষণগুলির তীব্রতার উপর নির্ভর করে চিকিৎসা করা হবে। যদি লক্ষণগুলি গুরুতর না হয় এবং ডাক্তার নির্ধারণ করেন যে এটি ব্যাসিলারি ডিসেনট্রি (শিগেললা), সেখানে সামান্য কিছু বা একদমই কোন ওষুধের প্রয়োজন পড়ে না এবং অসুস্থতা এক সপ্তাহের মধ্যেই চলে যায়। তবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে, অ্যান্টিবায়োটিকগুলি আমাশয়ের চিকিৎসার জন্য ব্যবহৃত হয়।

যদি আপনার ডাক্তার নির্ণয় করেন যে এটা অ্যামিবা ঘটিত আমাশয় সেক্ষেত্রে আপনাকে সম্ভবত একটি অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল ওষুধের 10 দিনের কোর্স দিয়ে শুরু করতে হবে। পুনরায় সংক্রমণ এড়াতে আপনি ওষুধের কোর্স পূর্ণ করেছেন তা নিশ্চিত করুন।

এছাড়াও, পর্যাপ্ত তরল পান করে আপনার শরীর আর্দ্র রয়েছে কিনা তা নিশ্চিত করুন। এবং পর্যাপ্ত হারে বিশ্রাম নিন।

আমাশয় প্রতিরোধের টিপস

  • কোনো রকম অপ্রাকৃতিক জলের উৎস বা সাঁতার কাটার পুল থেকে জল খাওয়া এড়িয়ে চলুন৷
  •  নিশ্চিত করুন যে আপনি শুধুমাত্র বিশুদ্ধ জলই পান করছেন৷
  •  ভ্রমণের সময় প্যাকেটজাত পানীয় জল পান করুন।
  • বাথরুম ব্যবহার করার পরে, ডায়পার পরিবর্তন করার পরে, খাবার তৈরি এবং খাওয়ার আগে একটি অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল সাবান দিয়ে আপনার হাত ধুয়ে নিন।
  • আপনার রান্নাঘরের স্বাস্থ্যবিধি পরীক্ষা করুন এবং বাইরে যেখানে আপনি খেতে গেছেন সেখানকার পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার দিকে খেয়াল রাখুন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button